Nipun Services
  Toronto, Ontario, Canada
  A  House of  Quality & Trust

  Nipun  Services

  Provide accurate services

News and Views Post New Entry

Sabina Ahmed

Posted by Nipunservices on November 18, 2014 at 10:25 AM

.

হাসিনার খেদ বাংলাদেশের উপর। বাংলাদেশের মানুষের উপর। কারন সবার জানা। হাসিনার মতে বাংলাদেশের জন্মদাতা তার পিতার মৃত্যুতে বাংলার মানুষ প্রতিবাদ করল না, কাঁদলো না, এমন কি জানাজায় পর্যন্ত অংশগ্রহণ করলো না। মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান রেন্টুর বইতে পড়েছিলাম হাসিনার প্রতিক্রিয়াঃ বাংলার মানুষকে আমি কাদিয়ে ছাড়বো......... বাংলাদেশকে আমি ধংস করে ছাড়বো।

.

হাঁ। হাসিনা তার প্রতিজ্ঞার শেষ প্রান্তে এসে গেছে। সব লেখার মত সময় নাই। তার সবচেয়ে বড় খেদ বাংলাদেশ সেনা বাহিনী। বাংলার মানুষেরও শেষ ভরসার স্থল বাংলাদেশ সেনা বাহিনী। এই বাহিনীকে ধাপে ধাপে ধ্বংসের শেষ প্রান্তে নিয়ে এসেছে।

.

> সেনাবাহিনী মেধাশুন্য করতে চেয়েছে, চৌকস অফিসারদের মেরে তা করেছে। কিছু মৃত্যু পর্দার বাহিরে ঘটেছে, কিছু মৃত্যু ঘটেছে পর্দার অন্তরালে।

.

> সেনাবাহিনীর চেইন অফ কমান্ড ভাঙ্গার প্রয়োজন ছিলো, হাসিনা তাতে সফল হয়েছে। চেইন অফ কমান্ড ভাঙ্গা মানে সেনাবাহিনীর কোমর ভেঙ্গে দেওয়া। আর কোমর ভাঙা সেনাবাহিনী মানে পোষা কুকুর। মনিবের পদ লেহন ছাড়া আর কিছু করার থাকে না।

.

> হাসিনার উদ্দেশ্য পুরনে বা কাঙ্খিত লক্ষে পৌছতে সেনাবাহিনীতে 'র' এর অনুপ্রবেশ ঘটানোর দরকার ছিলো, হাসিনা সফল্ভাবে তা করতে পেরেছে। প্রথমে 'র' এর জন্য ডিজেএফআই এর সদর দপ্তরের পঞ্চম তলায় দুটি রুম বরাদ্ধ দিলেও এখন পুরো পঞ্চম তলা 'র' এর জন্য বরাদ্ধ বা তাদের দখলে।

.

> এত কিছুর পরও হাসিনার সেনাবাহিনীর উপর খোব প্রশমন হয়নি। শেষ পর্যন্ত সেনাবাহিনীকে অপায়েজ পঙ্গু করার জন্য মাদকের বিস্তার ঘটিয়ে এমন ছোবল দিল যে এর থেকে সেনাবাহিনীকে উদ্ধার করা আদৌ সম্ভব হবে কিনা জানি না।

.

অনেকের হয়তো মনে আছে মেজর (বর্তমানে লেঃ কর্নেল) সিব্বির যশোর থেকে ঢাকা আসার পথে তার প্রাইভেট কারে বিপুর পরিমান ফেন্সিডিল সহ পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। এতগুলো ফেন্সিডিল সে কি তার নিজে খাওয়ার জন্য ঢাকা আনতেছিল? উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন মনে করি না কারন সে বর্তমানে সেনাবাহিনীতে বহাল তাবিয়তে আছে। প্রোমোশন পেয়ে লেঃ কর্নেল হয়েছে। এর মাঝে ইউএন মিশনেও গেছে!

.

সেনা অফিসারদের ভিতর মাদকের ভয়াবহতা কি মারাত্তক আকার ধারন করছে তা সাধারণ মানুষ বা সিভিলিয়ানদের চিন্তার বাইরে। অফিসার মেসগুলো এক একটা মাদকের আখড়া হয়ে গেছে। একটা উধারন দেইঃ অফিসারস মেস ব্রাভোতে (মেস-বি) একটা পুকুর আছে। পুকুরটা মাছ চাষের জন্য ইজারা দেওয়া। বছর তিনেক আগে ইজারাদার মাছ ধরার জন্য জাল দিলে মাছের পরিবর্তে শত শত ফেন্সিডিল ও মদের বোতল জালে আটকায়। ইজারাদার বিষয়টা স্টেশন কমান্ডারকে অবহিত করলে পুকুরটি সেচে এগার বস্তা ফেন্সিডিল ও মদের বোতল পায়। এটা সারা বাংলাদেশের একটা খন্ডিত চিত্র মাত্র।

.

দুই দুই বার আর্মি দেশে কে উদ্ধার করেছিল স্বৈরাচার থেকে, ১৯৭১, ১৯৭৫। সেই আর্মিকে ধংস করে হাসিনা মেইড শিওর আর্মি জাতিকে আর সাহায্য করতে পারবেনা। আর ১৫ই অগাস্ট হবে না।

.

(ছবিতে যাকে দেখা যাচ্ছে সে লেঃ কর্নেল রউফ। শীতকালীন সামরিক মহড়ায় আয়েশে শিশা খাচ্ছে। সে বর্তমানে র‍্যাব-১৩ এর সিও। সে র‍্যাবের হয়ে যেখানে গিয়েছে সেখানে বিরোধী দলের লোকজনকে অপহরন ও গুম করাই ছিলো তার প্রধান কাজ। নারায়ণগঞ্জ সেভেন মার্ডারের পর এই রউফকে নিয়ে অনলাইনে অনেক লেখালেখি হয়। তার একটি পশমও খসে পড়েনি। কারন সে হাসিনার খুব আস্থাভাজন ও হাসিনার এজান্ডা বাস্তবায়নের অন্যতম ভুমিকায় আছে।)

.

কার্টেসিঃ জাতির নানা

Categories: __________Chapter-III

Post a Comment

Oops!

Oops, you forgot something.

Oops!

The words you entered did not match the given text. Please try again.

Already a member? Sign In

0 Comments

Oops! This site has expired.

If you are the site owner, please renew your premium subscription or contact support.